অ্যাসাইনমেন্ট ও সমাধান

ব-ফলা, ম-ফলা ও য-ফলার উচ্চারণসূত্র এবং গদ্য ও কবিতা থেকে বাছাইকৃত ফলাযুক্ত শব্দের উচ্চারণ

এইচএসসি ২০২২

৩য় সপ্তাহের এসাইনমেন্ট

এসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ – ০২

শিরোনামঃ

ব-ফলা, ম-ফলা ও য-ফলার উচ্চারণসূত্র এবং গদ্য ও কবিতা থেকে বাছাইকৃত ফলাযুক্ত শব্দের উচ্চারণ

এসাইনমেন্ট কভার

উত্তরপত্র

ব-ফলা, ম-ফলা ও য-ফলার উচ্চারণসূত্র এবং গদ্য ও কবিতা থেকে বাছাইকৃত ফলাযুক্ত শব্দের উচ্চারণ

শব্দের যথাযথ উচ্চারণের জন্য নিয়ম বা সূত্রের সমষ্টিকে উচ্চারণরীতি বলে। ভাষাতত্ত্ববিদ ও ব্যাকরণবিদাণ বাংলা ভাষার প্রতিটি শব্দের যথাযথ সঠিক উচ্চারণের জন্য কতকগুলো নিয়ম বা সূত্র প্রণয়ন করেছেন। এই নিয়ম বা সূত্রের সমষ্টিকে বলা হয় বাংলা ভাষার উচ্চারণনীতি ।

ব-ফলার উচ্চারণসূত্রঃ

নিচে উদাহরণসহ ব-ফলা উচ্চারণের ৫টি নিয়ম তুলে ধরা হলোঃ

১. পদের আদিতে অবস্থিত ব্যঞ্জনবর্ণে ব-ফলা যুক্ত হলে ব-ফলার কোনো উচ্চারণ হয় না। যেমন জ্বলন্ত (জলোনতো), স্বাগত (শাগতো) ইত্যাদি।

২. পদের মধ্যে বা শেষে অবস্থিত কোনো বর্ণের সঙ্গে ব-ফলা’ যুক্ত হলে সংযুক্ত বর্ণটির দ্বিত্ব উচ্চারণ হয়। যেমন : আশ্বিন (আশশিন), অশ্ব (অশশো) ইত্যাদি।

৩. ম-ব্যঞ্জনের সঙ্গে ব-ফলা যুক্ত হলে ব-এর উচ্চারণ অবিকৃত থাকে। যেমন : লম্বা (লমবো), কম্বল (কমবোল) ইত্যাদি।

৪. ব-ব্যঞ্জনের সঙ্গে ব-ফলা যুক্ত হলে ব-এর উচ্চারণ অবিকৃত থাকে।

যেমন : আব্বা (আববা), ডিব্বা (ডিববা) ইত্যাদি।

৫. ব-ফলা অন্য কোনো যুক্ত ব্যঞ্জনের সঙ্গে যুক্ত হলে ব-এর উচ্চারণ অনুচ্চারিত থাকে । যেমন : সান্ত্বনা (শানতোনা), দ্বন্দ্ব (দনদো) ইত্যাদি |

ম-ফলার উচ্চারণসূত্রঃ

নিম্নে ম-ফলা উচ্চারণের পাঁচটি নিয়ম উদাহরণসহ তুলে ধরা হলোঃ

১. শব্দের মধ্যে কিংবা শেষে অবস্থিত ‘ম-ফলা’ যুক্ত বর্ণের উচ্চারণ দ্বিত্ব হয় ও কিছুটা নাসিক্য প্রভাবিত হয়। যেমন: পদ্ম (পদদোঁ), ভন্ম (ভশশোঁ) ইত্যাদি।

২. কোনো শব্দের প্রথম বর্ণে ম-ফলা যুক্ত হলে ম-ফলা অনুচ্চারিত থাকে এবং কিছুটা নাসিক্যরূপে উচ্চারিত হয়। যেমন: শ্মশান (শঁশান), স্মরণ (শঁরোন্) ইত্যাদি।

৩. গ, ঙ, ট, ণ, ন, ম ও ল বর্ণের সঙ্গে ম-ফলা যুক্ত হলে ম-এর উচ্চারণ অবিকৃত থাকে। যেমন: যুগ্ম (জুগমো), তন্ময় (তনময়) ইত্যাদি।

৪. শব্দের শেষ ম-ফলা যুক্ত হলে ম-এর উচ্চারণ অবিকৃত থাকে। যেমন : বাগ্মী (বাগমি), যুগ্ম (জুগমো) ইত্যাদি।

৫. কিছু সংস্কৃত শব্দে ম-ফলার উচ্চারণ অবিকৃত থাকে। যেমন কুষ্মাণ্ড (কুশমানডো), সুস্মিতা (শুসমিতা) ইত্যাদি।

য-ফলার উচ্চারণসূত্রঃ

(ক) আদ্যবর্ণে য-ফলা যুক্ত হলে বর্ণটি অ-কারান্ত বা আ-কারান্ত হলে উচ্চারণ ‘অ্যা’ কারান্ত হয়ে যায়। যেমন ব্যথা (ব্যাথা), ন্যায় (ন্যায়) ইত্যাদি।

(খ) পদের মধ্যে কিংবা অন্ত্যে যুক্ত ব্যঞ্জনবর্ণের সঙ্গে য-ফলা সংযুক্ত হলে সাধারণত তার কোনো উচ্চারণ হয় না। যেমন—সন্ধ্যা (শোন্ধা), স্বাস্থ্য (শাসথো), কণ্ঠ্য (কনঠো) ইত্যাদি।

(গ) পদের মধ্যে কিবা অন্ত্যে যুক্ত ব্যঞ্জনবর্ণের সঙ্গে য-ফলা যুক্ত হলে সাধারণত তার উচ্চারণ হয় না। যেমন–সন্ধ্যা (শোন্ধা), স্বাস্থ্য (শাসেথা) ইত্যাদি।

পুনর্বিন্যাসকৃত পাঠ্যসুচির গদ্য ও কবিতা থেকে ব-ফলাযুক্ত, ম-ফলাযুক্ত ও য-ফলাযুক্ত শব্দ বাছাই করে উচ্চারণ নিন্মের হকে দেওয়া হলঃ

মূলশব্দ

উচ্চারণ

মূলশব্দ

উচ্চারণ

অকৃতজ্ঞ

অকৃতোগ্ গোঁ

পক্ষ

পোক্‌খো

আশ্রম

আস্ স্রোম

লাবণ্য

লাবোন্‌নো

অধ্যক্ষ

ওদ্ দোকখো

ব্যবহার

ব্যাবোহার

অনিঃশেষ

অনিশশেশ

তত্ত্বাবধান

তততাবধান

ইতোঃপূর্বে

ইতোপপুরবে

অসীম

ওশিম্

শ্রম

স্রোম

প্রত্যক্ষ

প্রোত্‌তোক্‌খো

স্বাগত

শাগতো

রাষ্ট্রপতি

রাশট্রোপোতি

আবৃত্তি

আব্ততি

কবিতা

কোবিতা

দীনবন্ধু

দিনোবোনধু

অত্যাবশ্যক

ওততাবোশশোক

ঐশ্বর্যবান

ওইশশোরযোবান

দায়িত্ব

দায়িততো

ভবিষ্যৎ

ভোবিশশোত

ব্যতীত

বেতিতো

বিজ্ঞপ্তি

বিগগোঁপতি

সৃজনশীল

সৃজোনশিল

পুনঃপুন

পুনোপপুনো

একাডেমি

অ্যাকাডেমি

ব্রাক্ষ্মন

ব্রামহোন

বৈশাখ

বোইশাখ্


 

Alamin Hossain Meraj

Assalamu Alaikum. I am Al-Amin Hossain Meraj, the founder of Education Helpline. I am studying CSE. I like to help students with various updates related to education. The guidelines and support that I did not get during my admission test, now I will help all the students in Bangladesh with all the guidelines and information for the admission test. I believe education is free. Learn with heart and soul.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!